বুধবার ২৫শে এপ্রিল ২০১৮ সকাল ০৭:১৩:৪২

Print Friendly and PDF

পুলিশকে আরও জনবান্ধব হিসেবে গড়ে তুলতে হবে: প্রধানমন্ত্রী


বিশেষ প্রতিনিধি:

প্রকাশিত : সোমবার ৮ই জানুয়ারী ২০১৮ বিকাল ০৫:৫৬:৫৭, আপডেট : বুধবার ২৫শে এপ্রিল ২০১৮ সকাল ০৭:১৩:৪১,
সংবাদটি পড়া হয়েছে ১৭৫ বার

সোমবার রাজধানীর রাজারবাগ পুলিশ লাইনে পুলিশ সপ্তাহ ২০১৮ এর উদ্বোধনী প্যারেড গ্রাউন্ডে অভিবাদন মঞ্চে দাঁড়িয়ে বর্ণাঢ্য কুচকাওয়াজে সালাম গ্রহণ করছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা-ছবি ফোকাস বাংলা

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, পুলিশকে আরও জনবান্ধব হিসেবে গড়ে তুলতে হবে। প্রতিদিনের কাজের জন্য জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে হবে। জঙ্গি-সন্ত্রাসবাদ মোকাবেলায় পুলিশ গত কয়েকবছরে কার্যকর ভূমিকা পালন করেছে। দেশ বিদেশে প্রশংসা অর্জন করেছে।

সোমবার সকালে রাজারবাগ পুলিশ লাইনে পুলিশ সপ্তাহের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে দেওয়া ভাষণে তিনি এসব কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, পুলিশ বাহিনী সাহসিকতার সঙ্গে ২০১৩-১৪-১৫ সালে জ্বালাও-পোড়াও মোকাবেলা করেছে। পুলিশের ২৭ সদস্য আত্মাহুতি দিয়েছে। শান্তিরক্ষা মিশনেও পুলিশ বাহিনীর সদস্যরা সুনামের সঙ্গে দায়িত্ব পালন করছে। মিয়ানমারের বাস্তুচ্যুত মানুষদের আশ্রয়ে পুলিশ অত্যন্ত দক্ষতার সঙ্গে কাজ করেছে।

এ দেশের মাটিতে জঙ্গি সন্ত্রাসী ও যুদ্ধাপরাধীদের আশ্রয় হবে না—উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, বাংলার মাটি থেকে তাদের নির্মূল করা হবে। সকল সন্ত্রাসী ও জঙ্গির বিরুদ্ধে জনপ্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে।

স্থিতিশীল আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি বিনিয়োগের পূর্বশর্ত বলেও এ সময় উল্লেখ করেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, পুলিশ সদস্যদের প্রযুক্তিগত আরও দক্ষতা অর্জন করতে হবে। এজন্য তাদের প্রশিক্ষণের প্রয়োজন। সরকার এই প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করছে। এরই মধ্যে পুলিশের বেতন বৃদ্ধি করা হয়েছে, জনবল বাড়ানো হয়েছে। ভবিষ্যতে পুলিশের জনবল আরও বাড়ানোর পরিকল্পনা রয়েছে। আইজিপির পদকে সিনিয়র সচিব করা হয়েছে। জঙ্গি ও সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে পুলিশের অ্যান্টি টেরোরিজম ইউনিট গঠন করা হয়েছে।

পুলিশ পদক প্রদান প্রসঙ্গে তিনি বলেন, এবার বিপুল সংখ্যক পুলিশ পদক দেওয়া হয়েছে। অতীতে এতো পদক দেওয়া হয়নি। এবার যারা পদক পেয়েছেন তারা আরও ভালোভাবে কাজ করতে উদ্বুদ্ধ হবেন বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।