শুক্রবার ১৯শে অক্টোবর ২০১৮ রাত ০২:৫২:১৫

Print Friendly and PDF

মাদকবিরোধী অভিযান‘বন্দুকযুদ্ধে’ এক রাতেই নিহত ৮


ডেস্ক রিপোর্ট:

প্রকাশিত : সোমবার ২১শে মে ২০১৮ ভোর ০৫:৪০:১৪, আপডেট : শুক্রবার ১৯শে অক্টোবর ২০১৮ রাত ০২:৫২:১৫,
সংবাদটি পড়া হয়েছে ৩৩৭ বার

প্রতীকী ছবি

মাদকবিরোধী অভিযানে যশোর, ঝিনাইদহ, চুয়াডাঙ্গা, রাজশাহী, নরসিংদী ও টাঙ্গাইলে বন্দুকযুদ্ধে আটজন নিহত হয়েছেন। নিহতরা মাদক বিক্রেতা বলে দাবি করছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

রোববার রাত সাড়ে ১২টা থেকে সোমবার ভোর পর্যন্ত এসব বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে। এতে কেবল যশোরেই তিনজন নিহত হন।

এ ছাড়া টাঙ্গাইল, নরসিংদী, রাজশাহী, ঝিনাইদহ ও চুয়াডাঙ্গায় একজন করে নিহত হয়েছেন।

পুলিশ জানিয়েছে, যশোরের শেখহাটি ও খোলাডাঙ্গায় কথিত ‘বন্দুকযুদ্ধে’ গুলিবিদ্ধ হয়ে তিনজন নিহত হয়েছেন।

ঘটনাস্থল থেকে অস্ত্র, গুলি ও মাদকদ্রব্য পাওয়া গেছে। নিহতরা মাদক বিক্রির সঙ্গে জড়িত বলে পুলিশ দাবি করলেও তাদের পরিচয় জানাতে পারেনি।

যশোরের আড়াইশ শয্যা হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক কল্লোল কুমার সাহা জানান, ভোর ৪টা ৫ মিনিটের দিকে যশোর কোতোয়ালি থানার উপপরিদর্শক তরুণ কুমার গুলিবিদ্ধ একটি এবং যশোর উপশহর ফাঁড়ির ইনচার্জ আব্দুর রহিম দুটি মৃতদেহ হাসপাতালে নিয়ে আসেন। তাদের মাথায় গুলিবিদ্ধ হওয়ায় চেহারা বিভৎস হয়ে গেছে বলে জানান এ চিকিৎসক।

মরদেহ তিনটি হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

টাঙ্গাইলের ঘাটাইলে দেউলাবাড়ি এলাকায় মহাসড়কসংলগ্ন ইটভাটার পাশে র‌্যাবের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে আবুল কালাম আজাদ নামে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন।

র‌্যাব ১২-এর অধিনায়ক আব্দুল আহাদ জানান, বড় ধরনের মাদকের চালান লেনদেনের খবরে র‌্যাবের একটি দল সেখানে অভিযানে যায়। এ সময় মাদক কারবারিরা র‌্যাবকে উদ্দেশ্য করে গুলিবর্ষণ করলে আত্মরক্ষায় র‌্যাবও পাল্টা গুলি ছোড়ে।

তিনি বলেন, গোলাগুলির পর প্রতিপক্ষ পিছু হটলে র‌্যাব সদস্যরা গিয়ে দেখেন একজন গুলিবিদ্ধ অবস্থায় পড়ে আছেন।

উদ্ধার করে স্থানীয় হাসপাতালে নিলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন বলে জানান তিনি।

নরসিংদীর ঘোড়াশালে র‌্যাবের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে ঈমান আলী নামে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন।

র‌্যাব জানিয়েছে, নিহত ঈমান আলী নরসিংদীর শীর্ষ মাদক বিক্রেতা। তার বিরুদ্ধে ১১টি মামলা আছে। তিনি পলাতক ছিলেন।

র‌্যাব বলছে, এ ঘটনায় তাদের দুই সদস্য আহত হয়েছেন।

রাজশাহীতেও র‌্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ লিয়াকত আলী মণ্ডল (৩৮) নামে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন।

বেলপুকুর থানার ক্ষুদ্র জামিরা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহত লিয়াকত পুঠিয়া উপজেলার নামাজগ্রামের বাসিন্দা। তার বাবার নাম জাব্বার আলী।

র‌্যাব-৫ রাজশাহীর উপ-অধিনায়ক মেজর এএম আশরাফুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, ক্ষুদ্র জামিরা গ্রামের একটি আমবাগানে মাদকদ্রব্য বিক্রি হচ্ছে, এ তথ্যের ভিত্তিতে র‌্যাবের একটি বিশেষ দল সেখানে অভিযান চালায়। এ সময় র‌্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে মাদক বিক্রেতারা র‌্যাব সদস্যদের লক্ষ্য করে গুলিবর্ষণ করে।

আত্মরক্ষার্থে র‌্যাব সদস্যরাও এ সময় পাল্টা গুলি ছুড়লে মাদক কারবারিরা ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায় বলে দাবি করেন র‌্যাবের এ উপঅধিনায়ক।

তিনি জানান, লিয়াকতকে আহতাবস্থায় ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ নরেন্দ্রপুর এলাকায় র‌্যাবের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে ছব্দুল মণ্ডল (৪৫) নামে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। তিনি উপজেলার নরেন্দ্রপুর গ্রামের মোহাম্মদ আলীর ছেলে।

ঝিনাইদহ র‌্যাব ৬-এর ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক এএসপি গোলাম মোর্শেদ জানান, মোটরসাইকেলে মাদকের চালান নিয়ে যাচ্ছে মাদক ব্যবসায়ীরা- এমন গোপন সংবাদের ভিত্তিতে উপজেলার নরেন্দ্রপুর এলাকায় চেকপোস্ট বসায় র‌্যাব। এ সময় ছব্দুল মণ্ডলকে থামাতে সংকেত দিলে তিনি র‌্যাবকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে। র‌্যাবও পাল্টা গুলি ছুড়লে ঘটনাস্থলে তিনি নিহত হন।

চুয়াডাঙ্গার জীবননগর উপজেলার উথলী গ্রামের সন্ন্যাসীতলা মাঠে রোববার দিবাগত রাত পৌনে ১টার দিকে পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে জনাব আলী (৩২) নামে চিহ্নিত এক মাদক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছেন।

নিহত জনাব আলী উথলী গ্রামের আমতলাপাড়ার মো. জামাত আলীর ছেলে। বন্দুকযুদ্ধের সময় জীবননগর থানার তিন পুলিশ সদস্যও গুরুতর আহত হয়েছেন বলে পুলিশের দাবি।

জীবননগর থানার ওসি মো. মাহমুদ রহমান জানান, বন্দুকযুদ্ধে নিহত জনাব আলীর বিরুদ্ধে জীবননগর থানাসহ পার্শ্ববর্তী থানায় অন্তত ১১টি মাদক মামলা রয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ একটি শর্টগান, দুটি কার্তুজ, ৩টি রামদা এবং এক বস্তা ফেনসিডিল উদ্ধার করেছে।