সোমবার ২২শে অক্টোবর ২০১৮ রাত ০১:২১:২৪

Print Friendly and PDF

পুলিশের ওপর মানুষের বিশ্বাস ফিরে এসেছে: প্রধানমন্ত্রী


নিজস্ব প্রতিবেদক:

প্রকাশিত : রবিবার ১৬ই সেপ্টেম্বর ২০১৮ সকাল ১১:৪০:৫৬, আপডেট : সোমবার ২২শে অক্টোবর ২০১৮ রাত ০১:২১:২৪,
সংবাদটি পড়া হয়েছে ১৪৩ বার

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, পুলিশের ওপর মানুষের বিশ্বাস ফিরে এসেছে। আইন-শৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণে এ বাহিনী দিন-রাত এক করে কাজ করে যাচ্ছে। দেশের মানুষের নিরাপত্তা নিশ্চিতেও এ বাহিনী দায়িত্বশীলতার পরিচয় দিয়েছে।

রোববার গণভবনে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে গাজীপুর ও রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ ইউনিটের উদ্বোধনকালে তিনি এ কথা জানান।

শেখ হাসিনা বলেন, দেশে বাংলাভাই ও জঙ্গিবাদের বিস্তার ঘটেছিল। পুলিশ বাহিনীকে ধন্যবাদ জানাই, তারা সময়োচিত সিদ্ধান্ত নিয়ে দেশকে জঙ্গিবাদমুক্ত রাখতে চেষ্টা করে যাচ্ছে।

‘পুলিশের কোনো কর্মঘণ্টা নেই। বিএনপি-জামায়াত জোটের অগ্নিসন্ত্রাসের শিকার হয়েছে পুলিশ বাহিনী। প্রায় ২৭ জন পুলিশ নিহত হয়েছে সেই সময়,’ যোগ করেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, একটি দেশকে উন্নত করতে হলে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি ঠিক রাখা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। আমাদের পুলিশ বাহিনী দেশে স্থিতিশীলতা বজায় রাখতে নিষ্ঠার সঙ্গে কাজ করে যাচ্ছে।

তিনি বলেন, দেশ উন্নয়নশীল রাষ্ট্রে উন্নীত হয়েছে। বাংলাদেশ এভাবেই মর্যাদা নিয়ে এগিয়ে যাবে। বিশ্বে আর কারো কাছে হাত পাতবে না বাংলাদেশ।

শেখ হাসিনা বলেন, গাজীপুর ও রংপুরের উন্নয়নে এই দুই পুলিশ ইউনিট ভূমিকা রাখবে। ফলে এসব অঞ্চলে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর তৎপরতা বাড়বে। ফলে অপরাধ নিয়ন্ত্রণে থাকবে ও জনসাধারণ নির্বিঘ্নে জীবনযাপন করতে পারবে।

পুলিশ বাহিনীর প্রশংসা করে তিনি বলেন, আসলে কাজের কথা বিবেচনা করে আমি দেখেছি- পুলিশ বাহিনীকে অনেক কষ্ট করতে হয়। ১৯৯৬ সালে ক্ষমতায় এসে আমি দেখেছি- মাত্র ২০ শতাংশ পুলিশ রেশন পেত, আমি সেখান থেকে তা বাড়িয়ে দিয়েছি, ঝুঁকি ভাতা চালু করা থেকে শুরু করে অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করতে পদক্ষেপ নিয়েছি। তাদের আবাসন ব্যবস্থা করেছি।

‘রংপুর ও গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের দুটি ইউনিট চালু করছি, যাতে এ দুই অঞ্চলের মানুষ আইনি সেবা পেতে পারে,’ বলেন প্রধানমন্ত্রী।

শেখ হাসিনা বলেন, উত্তরবঙ্গ একসময় অবহেলিত ছিল। আমরা সেখানে ইপিজেড করেছি। অর্থনৈতিক অঞ্চল করেছি। আমরা রংপুরকে বিভাগ করেছি। এখন রংপুরকে মেট্রোপলিটন পুলিশ ইউনিট ঘোষণা করছি। আমরা উত্তরবঙ্গের উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছি।’

তিনি আরও বলেন, ২০৪১ সালে বাংলাদেশকে উন্নত দেশ হিসেবে গড়তে চাই। ২১০০ সালে বাংলাদেশকে কোন জায়গায় দেখতে চাই, সে পরিকল্পনা করে ডেল্টা প্ল্যান করেছি।