বৃহঃস্পতিবার ১৯শে জুলাই ২০১৮ রাত ০১:৪৩:১৯

Print Friendly and PDF

যে গ্রামের শিশুরাও ধূমপান করে


রকমারি ডেস্ক:

প্রকাশিত : বুধবার ১০ই জানুয়ারী ২০১৮ সন্ধ্যা ০৬:৪৩:৩০, আপডেট : বৃহঃস্পতিবার ১৯শে জুলাই ২০১৮ রাত ০১:৪৩:১৯,
সংবাদটি পড়া হয়েছে ৩৭২ বার

উৎসবের দিনটিতে শিশুদের সিগারেট খেতে উৎসাহিত করা হয়

পর্তুগালের একটা প্রত্যন্ত গ্রামে অভিভাবকরা তাদের শিশুদের সিগারেট কিনে দেন এবং ধূমপান করতে উৎসাহিত করেন। আর শিশুরাও মহানন্দে সেই সিগারেট খায়।

ভেল দে সুলগেইরো গ্রামের এটাই প্রচলিত রীতি। শিশুদের বয়স যখন পাঁচ বছর হয় তখন তাদের সিগারেট খেতে উৎসাহিত করা হয়। যীশুখ্রিস্টের আবির্ভাব দিবস উপলক্ষে এই গ্রামে কিং ফিষ্ট নামে একটি উৎসব হয়। নতুন বর্ষ বরণের পরে দুইদিন ধরে এই উৎসব উদযাপন করা হয়। শুক্রবার শুরু হয়ে শেষ হয় শনিবার।

উৎসবের দিন আগুন জ্বালিয়ে গ্রামবাসীরা তার চারপাশে নাচতে থাকেন। একজনকে রাজা সাজানো হয। তিনি সবাইকে মদ এবং খাবার পরিবেশন করেন। সেই অনুষ্ঠানেই শিশুদের সিগারেটে উৎসাহিত করা হয়।

পর্তুগালে ১৮ বছর বয়সের আগে ধূমপান করা আইনত নিষিদ্ধ। কিন্তু এই গ্রামের অভিভাবকরা সেই নিয়মের তোয়াক্কা করেন না। আর রাষ্ট্রও এই বিষয়ে কোন হস্তক্ষেপ করে না।

গ্রামের এক অভিভাবক বলেন, আমি মেয়েকে কেন সিগারেট খেতে দিচ্ছি এর কোন ব্যাখ্যা আমার কাছে নেই। তবে এতে খারাপ কিছু দেখি না। আসলে শিশুরা তো সত্যিকার ধূমপান করতে পারে না। তারা ধোঁয়া টানে এবং ছেড়ে দেয়।

উৎসবের দিনে তারা ধূমপান করে। এরপর তারা কখনও সিগারেট চা্ইবে না। গ্রামেরই এক প্রবীণ ব্যক্তি জানান, এই আজব নিয়ম অবশ্য শুধু উৎসবের দুইদিন। আসলে এই উৎসবে গ্রামবাসী সেসব কাজই করেন, যেগুলো তারা সারা বছর করতে পারেন না। শিশুদের ধূমপানের বিষয়টিও সেরকম।

জোস রিবাইরিনহা নামের একজন লেখক ভেল দে সুলগেইরো গ্রামের উৎসব নিয়ে একটি বই লিখেছেন। সেখানে তিনি বলেছেন, কেন এই গ্রামে এ ধরনের রীতি চালু তা অজানা।তারা হয়তো প্রকৃতি আর মানবজাতির পুনর্জন্ম উদযাপনের জন্যই এমন উৎসব করে। সূত্র: ইন্ডিয়া টুডে