বুধবার ২০শে সেপ্টেম্বর ২০১৭ সকাল ১১:৪৭:২৫

Print Friendly and PDF

‘এত দিনে প্রধানমন্ত্রী জাগ্রত হয়েছেন’


নিজস্ব প্রতিবেদক:

প্রকাশিত : রবিবার ১০ই সেপ্টেম্বর ২০১৭ রাত ১০:০৭:১৭, আপডেট : বুধবার ২০শে সেপ্টেম্বর ২০১৭ সকাল ১১:৪৭:২৪,
সংবাদটি পড়া হয়েছে ৭৫ বার

সময়নিউজ ডট নেট:
ঢাকা: মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গা শরণার্থীদের প্রশ্নে জাতীয় ঐক্য চায় বিএনপি। দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এই বিষয়ে সবাইকে এক হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন।

রোববার সন্ধ্যায় রমনা ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে এক আলোচনা সভায় তিনি এ আহ্বান জানান।

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ও সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের দশম কারামুক্তি দিবস উপলক্ষে জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল এ আলোচনা সভার আয়োজন করে।

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, প্রধানমন্ত্রী আগামী মঙ্গলবার রোহিঙ্গা শরণার্থীদের দেখতে যাবেন। এত দিন পরে তিনি জাগ্রত হচ্ছেন। এই জাগ্রত যদি আগে হতে পারতেন, তাহলে এই অবস্থা হতো না।

তিনি বলেন, মিয়ানমার সরকারের নির্মমতায় ২৫ আগস্ট থেকে দলে দলে বাংলাদেশে আসছে রোহিঙ্গা শরণার্থীরা। এর পরও আপনারা চুপ করে বসে আছেন। যখন বিশ্ব নাড়াচড়া দিতে শুরু করেছে, তখন আপনাদের হুঁশ হলো।

বিএনপির মহাসচিব বলেন, আমাদের নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া ২৫ আগস্টের পরেই লন্ডন থেকে স্টেটম্যান্ট দিয়েছেন। তিনি বলেছেন, সতর্ক হোন এবং এখনই সময় কূটনৈতিক ব্যবস্থা গ্রহণ করে তাদের ফিরিয়ে দেয়ার ব্যবস্থা করুন। আপনারা তখন কিছু করেননি।

তিনি বলেন, লাখ লাখ রোহিঙ্গা শরণার্থী এ দেশে এসেছে। তাদের রাখা আমাদের জন্য কঠিন। একইসঙ্গে তাদের তাড়িয়ে দেয়া অমানবিক। তাদের তাড়িয়ে না দিয়ে আশ্রয় দিন, খাদ্য দিন, বস্ত্র দিন। একইসঙ্গে তাদের দেশে তারা যেন অধিকার নিয়ে নাগরিক হিসেবে চলে যেতে পারে তার জন্য আন্তর্জাতিক কূটনৈতিক চাপ সৃষ্টি করুন।

মির্জা ফখরুল বলেন, আমরা অবশ্যই এই ব্যাপারে গোটা বাংলাদেশের ঐক্য চাই। আমরা চাই, এ বিষয়ে সমগ্র দেশ এক হোক। এটা আমাদের একটা জাতীয় সমস্যা।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ এখন ষড়যন্ত্র আতঙ্কে ভুগছে। তারা ‘কন্সপ্রেসি ফোবিয়া’ অসুখে ভুগছে। দেখবেন প্রত্যেকটা জিনিসের মধ্যে তারা (ক্ষমতাসীন দল) ষড়যন্ত্র ও চক্রান্ত খুঁজে পায়।

বিএনপির এই নেতা বলেন, মিয়ানমার সরকার আজকে রোহিঙ্গাদের ওপর অন্যায়ভাবে নিপীড়ন-নির্যাতন চালাচ্ছে ও তাদের নির্মমভাবে হত্যা করছে। তারা তাদের নাগরিকদের বের করে দিচ্ছে দেশ থেকে। এ নিয়ে কথা বললেও তারা ষড়যন্ত্রের গন্ধ পাচ্ছেন।

গত কয়েক সাপ্তাহে দলের নেতাকর্মী-ব্যবসায়ী-কল্যাণ পার্টির মহাসচিবসহ চারজনকে গুম করা হয়েছে অভিযোগ করে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, এভাবে গুম করে, মিথ্যা মামলা দিয়ে তারা ক্ষমতায় টিকে আছে। কথায় কথায় গুলি, কথায় কথায় মিথ্যা মামলা। এই হত্যা-গুম-খুন-মিথ্যা মামলার ভয়কে জয় করে আমাদের সামনের দিকে এগোতে হবে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র সংসদসহ (ডাকসু) সারা দেশে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের নির্বাচনের দাবিতে ছাত্রদলকে সোচ্চার হওয়ার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ছাত্রদলকে ভয়কে জয় করতে হবে। কারণ ছাত্রদলের ইতিহাস গৌরবের ইতিহাস। সারা দেশে ছাত্রদলকে আরও সংগঠিত হতে হবে।

আগামী একাদশ নির্বাচন একতরফা হতে দেয়া হবে না বলেও হুশিয়ারি দেন ফখরুল।