বৃহঃস্পতিবার ২৩শে নভেম্বর ২০১৭ সকাল ০৭:৪৫:২৬

Print Friendly and PDF

রোহিঙ্গা ইস্যুতে রাজনীতি করতে চাই না: ফখরুল


নিজস্ব প্রতিবেদক:

প্রকাশিত : সোমবার ১১ই সেপ্টেম্বর ২০১৭ রাত ০৯:৫৩:৩৭, আপডেট : বৃহঃস্পতিবার ২৩শে নভেম্বর ২০১৭ সকাল ০৭:৪৫:২৬,
সংবাদটি পড়া হয়েছে ২৩৩ বার

সোমবার বিকেলে ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার ১০ম কারামুক্তি দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভায় সভাপতি হিসেবে বক্তব্য দেন মির্জা ফখরুল।

সময়নিউজ ডট নেট:
ঢাকা: রোহিঙ্গা ইস্যুতে রাজনীতি করার অভিযোগ নাকচ করে দিয়েছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

তিনি বলেন, 'একটি কথা স্পষ্ট করে বলে দিতে চাই, রোহিঙ্গা ইস্যুতে আমরা কোনো রাজনীতি করতে চাই না। রোহিঙ্গা সংকট একটি জাতীয় সমস্যা। আমরা চাই এ সংকট মোকাবিলা করতে।'

সোমবার বিকেলে রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার ১০ম কারামুক্তি দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, 'এ সংকট মোকাবিলা করতে হলে সমগ্র জাতিকে ঐক্যবদ্ধ করতে হবে।' একইসঙ্গে রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে মিয়ানমারকে বাধ্য করতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন। বক্তব্য রাখেন স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস, নজরুল ইসলাম খান, আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী, ভাইস চেয়ারম্যান বরকত উল্লাহ বুলু, অ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদীন, জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির সাধারণ সম্পাদক কাজী আবুল বাশার, যুবদলের সভাপতি সাইফুল আলম নিরব, স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি শফিউল বারী বাবু প্রমুখ।

সভা সঞ্চালনা করেন বিএনপির প্রচার সম্পদাক শহীদ উদ্দীন চৌধুরী এ্যানী।

ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, 'শেখ হাসিনার অধীনে একাদশ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার প্রশ্নই ওঠে না। আন্দোলনের মাধ্যমে সহায়ক সরকারের দাবি আদায় করতে হবে।'

রোহিঙ্গা সংকট প্রসঙ্গে তিনি বলেন, '১৯৭৮ সালে শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান এবং ১৯৯২ সালে খালেদা জিয়ার সময় রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে যে চুক্তি হয়েছিল সেই চুক্তির মাধ্যমেই মিয়ানমার সরকারকে চাপ দিতে হবে। যাতে রোহিঙ্গারা ফিরে মিয়ানমারের নাগরিকত্ব পান।'

মির্জা আব্বাস বলেন, 'মিয়ানমারের রোহিঙ্গাদের ব্যাপারে আওয়ামী লীগ সরকারের অবস্থান পরিষ্কার করতে হবে। দেরিতে হলেও প্রধানমন্ত্রীসহ সরকারের কয়েকজন রোহিঙ্গাদের শেষ পর্যন্ত দেখতে যাচ্ছেন।'

আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেন, 'রোহিঙ্গা ইস্যুতে মিয়ানমার সরকার বলছে, তারা সন্ত্রাস দমন করছে। আর আওয়ামী লীগ সরকারও বলছে রোহিঙ্গারা অস্ত্র নিয়ে আসতে পারে। তাদের মাধ্যমে জঙ্গি আসতে পারে। এতে স্পষ্ট হচ্ছে মিয়ানমার সরকার ও ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সরকারের কথা বলার সুর এক ও অভিন্ন।'