শুক্রবার ১৯শে অক্টোবর ২০১৮ সকাল ০৬:৩০:০০

Print Friendly and PDF

দেশে নিঃস্ব হয়ে বিদেশে কারাবন্দি


ডেস্ক রিপোর্ট:

প্রকাশিত : রবিবার ২৬শে ফেব্রুয়ারি ২০১৭ ভোর ০৫:৪৪:০৩, আপডেট : শুক্রবার ১৯শে অক্টোবর ২০১৮ সকাল ০৬:৩০:০০,
সংবাদটি পড়া হয়েছে ১৮৪৭ বার

ঢাকা: দেশে কর্মক্ষেত্র সংকুচিত হয়ে পড়ায় বৈধ ও অবৈধ পথে প্রতিদিনই বিদেশে পাড়ি জমাচ্ছেন বাংলাদেশিরা। পেটের তাগিদে পরিবার ও দেশ ছেড়ে প্রবাস জীবন বেছে নিয়ে পড়তে হচ্ছে চরম কষ্টে। যাবার সময়ই অবৈধ পন্থা অবলম্বন করে বিদেশে গিয়ে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর হাতে আটক হচ্ছেন কেউ কেউ।

২৬ ফেব্রুয়ারি রোববার একটি দৈনিকে প্রকাশিত ‘দেশে নিঃস্ব হয়ে বিদেশে কারাবন্দি’ শীর্ষক এক প্রতিবেদনে এসব তথ্য উঠে এসেছে।

সংসার চালাতে দিনমজুর বাবার হা-পিত্যেশ দেখে ঋণের টাকায় মালয়েশিয়ায় যান কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা উপজেলার বাহাদুরপুর ইউনিয়নের সাহেব আলীর ছেলে ফিরোজ। কিন্তু দালালরা তাকে প্রফেশনাল ভিসার বদলে ট্যুরিস্ট ভিসায় মালয়েশিয়ায় পাঠায়। আর তাই ফিরোজের ঠিকানা এখন মালয়েশিয়ার জহুর বারুর কারাগার।

আবার ওমানের কারাগারে বন্দি আছেন ফরিদপুরের চরভদ্রাসন উপজেলার চরবাজিগঞ্জ ইউনিয়নের সালেপুর গ্রামের শেখ বাবুল হোসেনের ছেলে শেখ সোহান। দালালরা তাকে ফ্রি ভিসার কথা বলে ওমানে পাঠানোর পর দেখা গেছে সেই ভিসা জাল। সোহান ছয় মাস ধরে সেখানে কারাবন্দি।

প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, বিশ্বের প্রায় ৩৮টি দেশের কারাগারে ৯ হাজার ৬৪০ প্রবাসী বাংলাদেশি নাগরিক কারাবন্দি বলে প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সর্বশেষ হিসাবে বলা হচ্ছে। সম্প্রতি পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলীও সংসদে এ হিসাব দিয়েছেন।

তবে প্রবাসী কর্মীদের নিয়ে কাজ করা বিভিন্ন সংস্থা ও প্রবাসীদের মতে, প্রবাসী বন্দির সংখ্যা সরকারি এ হিসাবের প্রায় দ্বিগুণ; ১৫ হাজারের বেশি হবে। তাদের মধ্যে এক মাস থেকে শুরু করে ১০ বছর ধরে কারাবন্দিরাও রয়েছেন।

প্রবাসীকল্যাণ মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, প্রবাসী বন্দিদের দেশে ফেরত আনতে প্রতি মাসেই প্রবাসীকল্যাণ বোর্ডে একাধিক আবেদন জমা পড়ছে। বন্দি প্রবাসীদের স্বজনদের অভিযোগ, বিদেশের কারাগারে আটক বাংলাদেশিদের মুক্তির বিষয়ে দূতাবাসগুলোকে চিঠি দিয়ে জানানো হলেও সংশ্লিষ্ট লেবার উইংয়ের কর্মকর্তারা জোরালো ভূমিকা নিচ্ছেন না।

এ ব্যাপারে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, প্রবাসীদের নিয়ে কাজ করার জন্য সরকারের কোনো লিগ্যাল উইং না থাকায় প্রতারণার শিকার হওয়া প্রবাসী কর্মীদের বছরের পর বছর বন্দি থাকতে হচ্ছে। তা ছাড়া পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এবং প্রবাসীকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সমন্বয়ের ঘাটতিকেও দুষছেন তাঁরা।

প্রতিবেদন থেকে আরও জানা যায়, প্রবাসীকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের হিসাব অনুযায়ী, কেবল মালয়েশিয়ার কারাগারেই বন্দি আছেন দুই হাজার ৪৬৯ বাংলাদেশি। ভারতেও এর কাছাকাছি সংখ্যার দুই হাজার ৩৩৭ বাংলাদেশি বন্দি। এ ছাড়া সংযুক্ত আরব আমিরাতে এক হাজার ৯৮ জন, ওমানে এক হাজার ৪৮, সৌদি আরবে ৭০৩, বাহরাইনে ৩৭০,  কুয়েতে ২৬১ এবং যুক্তরাজ্যে ২১৮ প্রবাসী কর্মী বন্দি রয়েছেন। আর জাপানে ১২৩ জন,  ইরাকে ১২১, কাতারে ১১২, মিয়ানমারে ৯৮, মেক্সিকোতে ৯৭, সিঙ্গাপুরে ৮৭, তুরস্কে ৬৮, ইতালিতে ৫১, ফ্রান্সে ৪৬, অস্ট্রেলিয়ায় ৩৯, জর্দানে ৩৭ এবং যুক্তরাষ্ট্রে ২৬ বাংলাদেশি কারাবন্দি।

একই ভাবে জর্জিয়ায় ২৬ জন, হংকংয়ে ২৪, থাইল্যান্ডে ২৩, পাকিস্তানে ১৯, দক্ষিণ কোরিয়ায় ১৬, নেপালে ১২, দক্ষিণ আফ্রিকায় ১১, মরিশাসে ৭ ও আজারবাইজানে ছয়জন বাংলাদেশি কারাবন্দি রয়েছেন। এ ছাড়া মিসর, চীন ও ব্রুনেইয়ে পাঁচজন করে; লেবানন ও মরক্কোয় দুজন করে একং কিরগিজস্তান, মঙ্গোলিয়া ও ব্রাজিলে একজন করে আটক রয়েছে।


সময়নিউজ ডট নেট//সাফায়েত