বৃহঃস্পতিবার ১৯শে এপ্রিল ২০১৮ বিকাল ০৩:২৫:৫৫

Print Friendly and PDF

নিজেদের রেকর্ডই ভাঙল পাকিস্তান


ক্রীড়া ডেস্ক:

প্রকাশিত : মঙ্গলবার ৩রা এপ্রিল ২০১৮ দুপুর ০২:৪০:০৪, আপডেট : বৃহঃস্পতিবার ১৯শে এপ্রিল ২০১৮ বিকাল ০৩:২৫:৫৫,
সংবাদটি পড়া হয়েছে ১৪১ বার

বাবর আজমের ব্যাট থেকে এসেছে ৯৭। ছবি: এএফপি

আগের ম্যাচে বড় হারে দায়ী করা হয়েছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজের ‘ক্লান্তি’কে। দীর্ঘ আকাশভ্রমণ শেষে পাকিস্তানে পা রেখেই মাঠে নেমে পড়া—১৪৩ রানের বড় হারে এসবই আড়াল করে দিয়েছিল ক্যারিবীয় দলের আসল মান। কিন্তু গতকালের দ্বিতীয় ম্যাচে বোঝা গেল, ক্লান্তিকে ঢাল বানিয়ে লাভ নেই, পাকিস্তানের সঙ্গে ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলের মানের পার্থক্যটা আসলেই অনেক বেশি। এতটাই বেশি যে পাকিস্তানি ব্যাটসম্যানরা হেসেখেলেই নিজেদের রেকর্ড ভেঙে নতুন রেকর্ড গড়েছেন। আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে নিজেদের সর্বোচ্চ রান (২০৫) করেই প্রতিপক্ষকে গুঁড়িয়ে দিয়েছে তারা। জবাবে ১২৩ রানে অলআউট হয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজ হেরেছে ৮২ রানে। প্রথম ম্যাচেই আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে নিজেদের সর্বোচ্চ সংগ্রহটা (২০৩) নতুন করে দেখেছিল সরফরাজ আহমেদের দল।

টসে জিতে ব্যাটিংয়ে নেমেই অবশ্য একটা প্রাথমিক ধাক্কা খেয়েছিল পাকিস্তান। ১১ রানেই ফিরে যান ওপেনার ফখর জামান। কিন্তু এই পর্যন্তই। ক্যারিবীয়দের আনন্দ এরপর থেকেই ধীরে ধীরে মিলিয়ে যেতে থাকে বাবর আজমের ব্যাটে। হুসেইন তালাতকে সঙ্গী করে গড়েন ১১৯ রানের জুটি। বাবর মাত্র ৫৮ বলে ৯৭ রান করে শেষ অবধি অপরাজিত থাকেন। আগের ম্যাচেই অভিষিক্ত তালাত ৪১ বলে করেন ৬৩। পাশাপাশি শোয়েব মালিক ৭ বলে ১৭ আর আসিফ আলী ৮ বলে ১৪ করে পাকিস্তানের সংগ্রহটা নিয়ে যান ২০৫-এ। দুঃস্বপ্নের দিনে ক্যারিবীয় বোলারদের মধ্যে সবচেয়ে ‘সফল’ ছিলেন রায়াদ এমরিট, কেসরিক উইলিয়ামস ও ওদিয়ান স্মিথ। এই তিনজনই একটি করে উইকেট নিয়েছেন যথাক্রমে ৪৭, ৪৩ ও ৪০ রানের বিনিময়ে।

২০৬ রানের লক্ষ্যে ব্যাটিংয়ে নেমে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ব্যাটিংটা অবশ্য আগের ম্যাচের চেয়ে ‘ভালো’ করেছে। ১২৩ রান পর্যন্ত নিজেদের স্কোর নিতে পেরেছে চাদউইক ওয়ালটন, দিনেশ রামদিন ও কিমো পলের কল্যাণে। ওয়ালটন ২৯ বলে ৪০, রামদিন ২০ বলে ২১ আর পল ১০ বলে ১৭ রান করেন। এই তিনের বাইরে আর কারওরই বলার মতো কোনো রান নেই।
ক্যারিবীয়দের ব্যাটিং লাইনআপে আতঙ্ক ছড়িয়েছেন মোহাম্মদ আমির। ২২ রানে নিয়েছেন ৩ উইকেট। ২টি করে উইকেট শাদাব খান ও হুসেইন তালাতের। হাসান আলী পেয়েছেন ১ উইকেট।