সোমবার ১৮ই ডিসেম্বর ২০১৭ সকাল ০৭:১০:২০

Print Friendly and PDF

চবি ছাত্রকে পেটাল ছাত্রলীগকর্মীরা


চবি প্রতিনিধি:

প্রকাশিত : মঙ্গলবার ১৯শে সেপ্টেম্বর ২০১৭ সন্ধ্যা ০৭:৩৭:০০, আপডেট : সোমবার ১৮ই ডিসেম্বর ২০১৭ সকাল ০৭:১০:২০,
সংবাদটি পড়া হয়েছে ২৩৭ বার

সময়নিউজ ডট নেট:
ঢাকা: চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) এক শিক্ষার্থীকে লোহার রড দিয়ে পিটিয়ে আহত করা হয়েছে। এ হামলার জন্য ছাত্রলীগ কর্মীদের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ করেছেন ওই শিক্ষার্থী।

মঙ্গলবার বিশ্ববিদ্যালয়ের আলাওল হল ক্যান্টিনে এ ঘটনা ঘটে। আহত পার্থ বণিক যোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের মাস্টার্সের শিক্ষার্থী। তিনি একসময় একটি জাতীয় দৈনিকের বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি ছিলেন। পার্থকে বিশ্ববিদ্যালয় মেডিকেল সেন্টারে ভর্তি করা হয়েছে।

ওই ছাত্রলীগকর্মীরা হলেন-বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজতত্ত্ব বিভাগের ২০১৫-১৬ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী আল আমিন ও ২০১৪-১৫ শিক্ষাবর্ষের মো. রাসেল এবং রাজনীতি বিজ্ঞান বিভাগের ২০১৫-১৬ শিক্ষাবর্ষের ইমরান হোসাইন। তারা সবাই সাবেক মেয়র ও নগর আওয়ামী লীগ সভাপতি এ বি এম মহিউদ্দীন চৌধুরী সমর্থিত ছাত্রলীগের সিএফসি গ্রুপের অনুসারী।

চবি প্রক্টর মো. আলী আজগর চৌধুরী বলেন, 'পার্থ নামের এক শিক্ষার্থীর কাছ থেকে আমি লিখিত অভিযোগ হাতে পেয়েছি। ঘটনাটি যাচাই করে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।'

এ প্রসঙ্গে পার্থ বলেন, 'দুপুরে ভাত খেতে আলাওল হল ক্যান্টিনে যাই। তখন ছাত্রলীগের কয়েকজন কর্মী অকথ্য গালিগালাজ শুরু করে। এসময় তাদের দিকে তাকানোয় তারা কারণ জিজ্ঞেস করে। এরপর আমার ওপর হামলা চালায় তারা। প্রথমে ছুরি দিয়ে আঘাত করতে চায়। কিন্তু উপস্থিত শিক্ষার্থীদের বাধায় তা না পেরে রান্নাঘর থেকে লোহার রড এনে আমার মাথায় আঘাত করে। আমি ছাত্রলীগের তিন কর্মীর বিরুদ্ধে প্রক্টর অফিস বরাবর লিখিত অভিযোগ দিয়েছি।'

বিশ্ববিদ্যালয় মেডিকেল সেন্টারের চিফ মেডিকেল অফিসার ডা. আবু তৈয়ব বলেন, 'আহত অবস্থায় পার্থ নামের এক শিক্ষার্থী আমাদের কাছে এসেছিল। তার মাথায় ধারালো অস্ত্রের আঘাত রয়েছে। মোট তিনটি সেলাই দেয়া হয়েছে তার মাথায়।'

জানতে চাইলে চবি ছাত্রীলগের স্থগিত কমিটির সহসভাপতি রেজাউল হক রুবেল বলেন, 'বিষয়টি আমি শুনেছি। এটি অত্যন্ত দুঃখজনক। জুনিয়র কর্মীদের সাথে ওই শিক্ষার্থীর সামান্য ভুল বোঝাবুঝি হয়েছে। আমি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে অনুরোধ জানিয়েছি যেই দোষী হোক তার বিরুদ্ধে যেন কঠোর ব্যবস্থা নেয়। অপরাধীরা কখনোই যেন ছাড় না পায়।'