বুধবার ১৯শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ রাত ০৩:৪১:৪৫

Print Friendly and PDF

গ্রেপ্তার গাড়ি চালকদের ৩ দিনের রিমান্ড চেয়েছে পুলিশ


নিজস্ব প্রতিবেদক:

প্রকাশিত : বৃহঃস্পতিবার ৫ই এপ্রিল ২০১৮ বিকাল ০৪:৩২:৫৬, আপডেট : বুধবার ১৯শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ রাত ০৩:৪১:৪৫,
সংবাদটি পড়া হয়েছে ৮১৭ বার

বেপরোয়া বাস: দুই বাসের ফাঁকে আটকে পড়েছে কলেজছাত্র রাজীব হোসেনের ডান হাত। বাসের চাপে বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে হাতটি। ফাইল ছবি

দুই বাসের রেষারেষিতে তিতুমীর কলেজের স্নাতকের ছাত্র রাজীব হোসেনের ডান হাত হারানোর ঘটনায় গ্রেপ্তার দুই গাড়ি চালককে আদালতে হাজির করে তিন দিনের রিমান্ড চেয়েছে পুলিশ। আজ বৃহস্পতিবার তাঁদের আদালতে হাজির করা হয়।

গ্রেপ্তার হওয়া ব্যক্তিরা হলেন বিআরটিসি বাসের চালক ওয়াহিদ (৩৫) ও স্বজন বাসের চালক খোরশেদ (৫০)।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা শাহবাগ থানার উপপরিদর্শক (এসআই) আফতাব আলী এই দুই চালককে আদালতে হাজির করে এই রিমান্ড আবেদন করেন।

রিমান্ড আবেদনে বলা হয়েছে, এই দুই গাড়ি চালকের জাতীয় পরিচয়পত্র এখনো পাওয়া যায়নি। তাই সন্দেহ করা হচ্ছে, তাঁরা তাঁদের প্রকৃত ঠিকানা গোপন করেছেন। ঘটনার তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত তাঁদের জামিন দিলে তাঁরা পালিয়ে যেতে পারেন। ঘটনার রহস্য উদ্‌ঘাটনে তাঁদের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা জরুরি।

এর আগে হাইকোর্ট রাজীব হোসেনের চিকিৎসা ব্যয় ওই দুই বাস মালিককে বহন করতে নির্দেশ দেন।

গত মঙ্গলবার বিআরটিসির একটি দোতলা বাসের পেছনের ফটকে দাঁড়িয়ে গন্তব্যে যাচ্ছিলেন রাজধানীর মহাখালীর সরকারি তিতুমীর কলেজের স্নাতকের (বাণিজ্য) দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র রাজীব হোসেন (২১)। হাতটি বেরিয়েছিল সামান্য বাইরে। হঠাৎই পেছন থেকে একটি বাস বিআরটিসির বাসটিকে পেরিয়ে যাওয়ার বা ওভারটেক করার জন্য বাঁ দিক গা ঘেঁষে পড়ে। দুই বাসের প্রবল চাপে রাজীবের হাত শরীর থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। দু-তিনজন পথচারী দ্রুত তাঁকে পান্থপথের শমরিতা হাসপাতালে নিয়ে যান। কিন্তু চিকিৎসকেরা চেষ্টা করেও বিচ্ছিন্ন সে হাতটি রাজীবের শরীরে আর জুড়ে দিতে পারেননি। শমরিতা হাসপাতাল সূত্র বলেছে, বিচ্ছিন্ন হওয়া হাতটি জোড়া লাগানো সম্ভব নয়, তাঁর অবস্থা গুরুতর।