বৃহঃস্পতিবার ২৭শে জুন ২০১৯ দুপুর ০২:৪৩:১১

Print Friendly and PDF

সব অপকর্ম হয়েছে আ’লীগের আমলেই: মির্জা ফখরুল


নিজস্ব প্রতিবেদক:

প্রকাশিত : সোমবার ৩রা জুন ২০১৯ সকাল ১০:০০:৪৩, আপডেট : বৃহঃস্পতিবার ২৭শে জুন ২০১৯ দুপুর ০২:৪৩:১১,
সংবাদটি পড়া হয়েছে ৪৩৩ বার

ফাইল ছবি

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, যত অপকর্ম এ দেশে, সব আওয়ামী লীগের আমলেই হয়েছে। দুর্ভিক্ষ হয়েছে, চরম দুর্নীতি হয়েছে। গণতন্ত্রকে গলাটিপে মেরে ফেলেছে। এই সংবিধানকে কেটে-ছিঁড়েছে কে? এই আওয়ামী লীগ।

রাজধানীর নয়াপল্টনে রোববার বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। ন্যাশনালিস্ট রিসার্চ সেন্টারের (এনআরসি) উদ্যোগে প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ৩৮তম শাহাদতবার্ষিকী উপলক্ষে ‘আঁধারের সাথে দ্বন্দ্ব’ শীর্ষক স্মৃতিস্মারক ও দেয়ালিকা প্রদর্শনীর এ অনুষ্ঠান হয়। এতে জিয়াউর রহমানের কর্মকাণ্ডের ৬০টি আলোকচিত্র স্থান পায়।

মির্জা ফখরুল বলেন, আওয়ামী লীগের শাসনামল আমরা দেখেছি। এই দলটার নেতা বড় বড় কথা বলেন। এখন তো সুবিধা, একাই কথা বলে। আর কথা বলার সুযোগ নাই। আজ দেখুন একইভাবে ভিন্ন আঙ্গিকে ওই একদলীয় শাসন ব্যবস্থা চেপে বসেছে এবং গণতন্ত্রের সমস্ত স্তম্ভগুলোকে ভেঙে দিয়েছে। রাষ্ট্রকে পুরোপুরি দলীয়করণ করে ফেলেছে। বিচার ব্যবস্থা, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, প্রশাসন, নির্বাচন কমিশন তারা পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণ করে রেখেছে। এমনকি এখন মিডিয়া, যেটা গণতন্ত্রের প্রধান স্তম্ভ, তাও তারা নিয়ন্ত্রণ করছে।

বাংলাদেশ বর্তমানে স্বাধীন নয়, নতজানু রাষ্ট্র- এমন মন্তব্য করে বিএনপির মহাসচিব বলেন, দেশে একটা দুঃসময় ও সংকটকাল চলছে। এই সংকট হচ্ছে জাতির। জাতি তার সব অর্জন হারিয়ে ফেলেছে। ১৯৭১ সালে স্বাধীনতা যুদ্ধে স্বাধীনতা অর্জন করেছিল। এখন কি আমরা বাংলাদেশকে স্বাধীন বলতে পারি? পারি না।

তিনি বলেন, স্পষ্ট করে দখলদার সরকারকে বলতে চাই, অবিলম্বে এই নির্বাচন বাতিল করে নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নতুন একটি নিরপেক্ষ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের ব্যবস্থা করুন। অন্যথায়, জনগণ তাদের যে ন্যায্য দাবি, সেই ন্যায্য দাবি তারা আদায় করে নেবে।

মির্জা ফখরুল বলেন, জিয়াউর রহমানের আদর্শ ও দর্শনকে আমাদের অনুসরণ করতে হবে। বিএনপিকে টিকিয়ে রাখা, জাতিকে টিকিয়ে রাখার মূল মন্ত্র হচ্ছে বাংলাদেশি জাতীয়তাবাদ। সুতরাং বাংলাদেশি জাতীয়তাবাদের বাইরে অন্য কিছু চিন্তা করা আমাদের জন্য সুইসাইডাল হবে।

বিএনপির মহাসচিব আরও বলেন, যারা জিয়াউর রহমানকে ভালোবাসেন, তার রাজনীতিকে ভালোবাসেন, আন্দোলনের মধ্য দিয়ে জনগণকে সম্পৃক্ত করে দেশনেত্রীকে কারাগার থেকে মুক্ত করা হবে আমাদের দায়িত্ব। আসুন, জিয়াউর রহমানের আদর্শে দীক্ষিত হয়ে দেশনেত্রী খালেদা জিয়াকে মুক্ত করবার জন্য আমরা শরিক হই। সেখানে সর্বোচ্চ ত্যাগ স্বীকার করতে প্রস্তুত থাকি।

সংগঠনের সভাপতি বাবুল তালুকদারের সভাপতিত্বে সভায় আরও বক্তব্য দেন দলের ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু, সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুস সালাম আজাদ, নির্বাহী কমিটির সদস্য টিএস আইয়ুব প্রমুখ।