শুক্রবার ২২শে নভেম্বর ২০১৯ সকাল ১০:৫৯:২১

Print

কাল ঘোষণা করবেন প্রধানমন্ত্রী * আজ গণমাধ্যম সম্পাদকদের সঙ্গে মতবিনিময় শিক্ষামন্ত্রীর * নীতিমালা সংশোধনের দাবিতে আমরণ অনশনে শিক্ষকরাএমপিওভুক্ত হচ্ছে ২৭৬৮ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান


বিশেষ প্রতিনিধি:

প্রকাশিত : মঙ্গলবার ২২শে অক্টোবর ২০১৯ সকাল ০৮:৫৪:৪৬, আপডেট : শুক্রবার ২২শে নভেম্বর ২০১৯ সকাল ১০:৫৯:২১,
সংবাদটি পড়া হয়েছে ৩৫২ বার

দুই হাজার ৭৬৮টি স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসাকে এমপিওভুক্ত করা হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আগামীকাল বুধবার গণভবনে নতুন এমপিওপ্রাপ্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের তালিকা ঘোষণা করবেন।

এর আগে এ নিয়ে আজ শিক্ষামন্ত্রী গণমাধ্যম সম্পাদকসহ সিনিয়র সাংবাদিক ও শিক্ষা বিটের প্রতিনিধিদের সঙ্গে মতবিনিময় করবেন। সংশ্লিষ্ট সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

সূত্র নিশ্চিত করেছে, এমপিওর জন্য অনুমোদন পাওয়া শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের তালিকায় এক হাজার ৬৫১টি স্কুল ও কলেজ আছে। মাদ্রাসা আছে ৫৫৭টি, ভোকেশনাল প্রতিষ্ঠান ১৭৭টি, কৃষি প্রতিষ্ঠান ৬২টি এবং এইচএসসি বিএম প্রতিষ্ঠান ২৮৩টি।

আর্থিক সংকটের কারণে শেষের ২৮৩টি বাদ দেয়া হয়েছিল। পরে অর্থের সংস্থান করে এমপিওভুক্তির তালিকায় আনা হয়েছে।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের দুই কর্মকর্তা এসব তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, আগামীকাল বেলা ১১টায় নতুন এমপিও পাওয়া প্রতিষ্ঠানের নাম ও তালিকা প্রকাশ করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এ উপলক্ষে আজ দুপুর ২টায় এ বিষয়ে গণমাধ্যমের বিশিষ্টজন ও শিক্ষাবিটের সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময় করবেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।

জানা গেছে, স্কুল-কলেজের এমপিওভুক্তির একটি তালিকা অনুমোদনের জন্য কয়েক দফায় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে পাঠানো হয়। কিন্তু প্রতিবারই তালিকায় নানাভাবে ভুলভ্রান্তি করা হয়েছিল শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট শাখা থেকে।

ওই শাখার দায়িত্বে থাকা অতিরিক্ত সচিব সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবরের পিএস ছিলেন। মন্ত্রণালয়ের নীতিনির্ধারকরা মনে করছেন, সরকারের এই গুরুত্বপূর্ণ কাজকে বিঘ্নিত করতে ইচ্ছাকৃতভাবেই ওই কর্মকর্তা বারবার ভুল করেছেন।

এ কারণে চলতি মাসের শুরুর দিকে ব্যক্তিগত কাজে ভারতে যাওয়ার দিন শিক্ষামন্ত্রী ওই কর্মকর্তার কাছে ভুলের বিষয়ে কৈফিয়ত চেয়েছেন। প্রত্যক্ষদর্শী কর্মকর্তারা এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

যদিও ওই কর্মকর্তা এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করেননি। সর্বশেষ ২০১০ সালের জুনে ১ হাজার ৬২৪টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত করা হয়েছিল। এরপর এমপিওভুক্তির দাবিতে বিভিন্ন সময়ে আন্দোলন হয়েছে।

কিন্তু সরকার নতুন প্রতিষ্ঠানকে এমপিও দিতে পারেনি। সেই হিসেবে প্রায় সাড়ে নয় বছর পর ফের নন-এমপিও মাধ্যমিক বিদ্যালয়, কলেজ, মাদ্রাসা ও কারিগরি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-কর্মচারীরা এমপিওভুক্ত হতে যাচ্ছেন।

এদিকে মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, ২০১৮ সালের বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের জনবল কাঠামো ও এমপিও নীতিমালা অনুযায়ীই এবারের এই এমপিও দিচ্ছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়।

রোববার রাতে নন-এমপিও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান শিক্ষক কর্মচারী ফেডারেশনের নেতারা শিক্ষামন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকে বসলে তাদের এ তথ্য নিশ্চিত করা হয়। কিন্তু শিক্ষক নেতারা বলছেন, নীতিমালা অসঙ্গতিপূর্ণ।

তাই নীতিমালা সংশোধন করতে হবে। সংশোধন না করে এমপিও দেয়া যাবে না। আর যদি এমপিও দিতেই হয় তাহলে স্বীকৃতিই একমাত্র মানদণ্ড ধরে শুধু স্বীকৃতিপ্রাপ্ত সব নন-এমপিও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত করতে হবে।

এই তারা এক সপ্তাহ ধরে আন্দোলন করছেন। শিক্ষামন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনা ফলপ্রসূ না হওয়ায় সোমবার তারা প্রেস ক্লাবের সামনে আমরণ অনশন শুরু করেছেন। তারা প্রধানমন্ত্রীর সাক্ষাতের দাবি করছেন।

ফেডারেশনের সভাপতি অধ্যক্ষ গোলাম মাহমুদুন্নবী ডলার বলেন, প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাতের সুনির্দিষ্ট তারিখ না পেলে আন্দোলন কর্মসূচি চালিয়ে যাবেন তারা।

অপরদিকে বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষের (এনটিআরসিএ) সুপারিশে বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে নিয়োগের সুপারিশপ্রাপ্তরা সোমবার প্রেস ক্লাবের সামনে মানববন্ধন করেছেন।

এ সময় তারা সুপারিশপ্রাপ্তদের সঠিকপথে যোগদানের ব্যবস্থা এবং যোগদানকৃতদের বিভিন্ন শর্ত শিথিল করে বা অন্যত্র যথাযথ পদে এমপিওভুক্ত করার দাবি জানিয়েছেন।

মানববন্ধনে সুপারিশপ্রাপ্ত বেসরকারি শিক্ষক পরিষদের আহ্বায়ক শাহাদৎ হোসেনসহ অন্যরা বক্তৃতা করেন।