বৃহঃস্পতিবার ২২শে আগস্ট ২০১৯ দুপুর ০২:৫৮:৪৪

Print Friendly and PDF

অবশেষে টাঙ্গাইল-ঢাকা মহাসড়কে দ্রুতগতিতে চলছে যানবাহন


জেলা সংবাদদাতা/টাঙ্গাইল:

প্রকাশিত : রবিবার ১১ই আগস্ট ২০১৯ রাত ০৮:৫৪:৪৭, আপডেট : বৃহঃস্পতিবার ২২শে আগস্ট ২০১৯ দুপুর ০২:৫৮:৪৪,
সংবাদটি পড়া হয়েছে ৮২ বার

ঢাকা-টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কে গত তিনদিন যাবত অসহনীয় যানজটের পর আজ রবিবার বিকেল ৫টা থেকে মহাসড়ক ফাঁকা হতে শুরু করেছে। যানবাহন চলছে দ্রুতগতিতে। অবশেষে ঈদে ঘরমুখো মানুষ স্বস্তিতে ফিরতে পারছে স্বজনদের কাছে।

অতিরিক্ত যানবাহনের চাপে ঢাকা-টাঙ্গাইল বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কে তৃতীয় দিনেও অন্তত ৭/৮টি পয়েন্টে যানজটের সৃষ্টি হয়। প্রতিটা স্থানেই এক-দেড় ঘন্টা যানজটে আটকা পড়ে থাকতে হচ্ছে হাজার হাজার যাত্রীবাহী যানবাহনকে। এদিকে, সিরাজগঞ্জের অংশে গাড়ি টানতে না পারায় সেতুর পূর্বপাড়ে টোল প্লাজায় দফায় দাফায় টোল আদায় বন্ধ করে দেয় কতৃপক্ষ।

কারন সেতুর উপর যানবাহনের চাপ কমাতেই টোল আদায় বন্ধ রাখা হয়। এতে করে দিনে প্রায় দুই ঘন্টা টোল আদায় বন্ধ রাখার কারনে বঙ্গবন্ধুসেতু এলাকা থেকে মির্জাপুর পর্যন্ত প্রায় ৪০ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে তীব্র যানজট হয়। রাস্তায় যানজটের কারণে ঈদে ঘরমুখো মানুষকে পড়তে হচ্ছে চরম ভোগান্তিতে। বিশেষ করে বৃদ্ধ শিশু ও মহিলা যাত্রীদের দুর্ভোগের শিকার হচ্ছে বেশী।

এদিকে, দীর্ঘ সময় যানজটে আটকা পড়ে যাত্রীরা বিক্ষুদ্ধ হয়ে উঠেছে। তারা রাস্তায় নেমে ঢাকামুখী লেন দিয়ে চলাচল করা যানবাহন আটকে দেওয়ার মতো ঘটনাও ঘটেছে। রেহায় পায়নি রোগী বহন ছাড়া কোন এম্বুলেন্সও।

হাইওয়ে পুলিশের সার্জেন্ট ইফতেখার নাসির রোকন জানান, সিরাজগঞ্জ অংশে গাড়ি টানতে না পারার কারনে আজ সকালেও বঙ্গবন্ধুসেতুর টোল আদায় দুই দফা বন্ধ ছিল। আর এ কারনে দীর্ঘ যানজট হয়েছে।

বাংলাদেশ সেতু কতৃপক্ষের নির্বাহী প্রকৌশলী আহসানুল কবির জানান, টোল আদায় বন্ধ করা হয়নি। সেতুর উপর দিয়ে যানবাহন আটকে থাকলে টোল আদায় করা এমনিতেই সম্ভব হয় না।

অপরদিকে, মহাসড়কে ফিটনেসবিহীন গাড়ি চলাচল করায় তা যত্রতত্র বিকল হয়ে যাবার কারনেও যানজটের সৃষ্টি হয়েছে বলে জানিয়েছেন টাঙ্গাইলের পুলিশ সুপার সঞ্জিত কুমার রায়।