রবিবার ১৫ই ডিসেম্বর ২০১৯ দুপুর ১২:০১:১০

Print

‘ছেলেধরা’ সন্দেহে রোহিঙ্গা তরুণীকে গণপিটুনি


জেলা সংবাদদাতা/বান্দরবান:

প্রকাশিত : শুক্রবার ১৯শে জুলাই ২০১৯ রাত ০৯:৫৭:৫৮, আপডেট : রবিবার ১৫ই ডিসেম্বর ২০১৯ দুপুর ১২:০১:১০,
সংবাদটি পড়া হয়েছে ১৯১ বার

ছবি : সংগৃহীত

বান্দরবান উপজেলায় ‘ছেলেধরা’ সন্দেহে এক রোহিঙ্গা তরুণীকে গণপিটুনি দিয়েছে বিক্ষুব্ধ জনতা। পরে তাকে আটক করে পুলিশ। তার নাম রোকেয়া (১৮)। তিনি কক্সবাজার কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্পের শরণার্থী।

আজ শুক্রবার সকালে সদর উপজেলার লেমুঝিরি আগাপাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। জানা গেছে, শুভ নামে এলাকার এক কিশোর গরু চরাতে মাঠে যায়। এ সময় তাকে দেখে নিজের কাছে ডাকেন রোকেয়া। অপরিচিত হওয়ায় রোকেয়ার কাছে না গিয়ে বাড়ি ফিরে যায় শুভ। পরে পরিবারের কাছে বিষয়টি জানায়।

স্থানীয় লোকজন বিষয়টি জানতে পেরে রোকেয়াকে ধাওয়া দেয়। এ সময় তিনি পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন। পরে আগাপাড়া এলাকায় তাকে আটকে ফেলে গণপিটুনি দেয় বিক্ষুব্ধ জনতা।

পরে খবর দিলে পুলিশ এসে রোকেয়াকে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য সদর হাসপাতালে ভর্তি করে।

পুলিশ জানিয়েছে, রোকেয়া কক্সবাজার কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্পের শরণার্থী। তিনি মাথার চিকিৎসা করাবেন বলে ক্যাম্প থেকে বের হন। জিজ্ঞাসাবাদে তিনি আরও জানান, ঘটনার সময় ওই এলাকায় তার সঙ্গে আরও ৪ নারী ছিলেন। কিন্তু তার অবস্থা দেখে ও চিৎকার শুনে তারা পালিয়ে যান।

বান্দরবান সদর থানার ভারর্প্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শহিদুল ইসলাম জানান, ছেলেধরা সন্দেহে ওই তরুণীকে গণপটিুনি দিয়েছে স্থানীয়রা। তাকে হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়েছে। সুস্থ্য হলে ‘কী ঘটেছিল’ তা জানা যাবে।