শনিবার ২০শে জুলাই ২০১৯ সকাল ০৯:২৫:৫৩

Print Friendly and PDF

পাবনায় গ্রেফতারের পর ‘বন্দুকযুদ্ধে’ যুবক নিহত


জেলা সংবাদদাতা/পাবনা:

প্রকাশিত : বুধবার ১০ই জুলাই ২০১৯ সকাল ০৯:৩৪:১২, আপডেট : শনিবার ২০শে জুলাই ২০১৯ সকাল ০৯:২৫:৫৩,
সংবাদটি পড়া হয়েছে ১৭০ বার

প্রতীকী ছবি

পাবনার সুজানগর উপজেলায় গ্রেফতারের পর পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ এক যুবক নিহত হয়েছেন। নিহতের নাম মো. সাইফুল ইসলাম গেদা ওরফে গেদালাল (৩০)।

পুলিশের দাবি, নিহত গেদালাল আন্তঃজেলা ডাকাত দলের সদস্য। তার বিরুদ্ধে মানিকগঞ্জে সোনার দোকানে ডাকাতি, সুজানগরে অপহরণ ও খুনসহ ৫টি মামলা রয়েছে। গেদালাল উপজেলার নরসিংহপুরের মো. হাবিবুর রহমান মোল্লা হাফিজার ছেলে।

মঙ্গলবার রাত আড়াইটার দিকে নাজিরগঞ্জ উপজেলার হাসামপুর গ্রামের ঈদগাহসংলগ্ন পাটক্ষেতের কাছে এ বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে।

ঘটনাস্থলে একটি শাটারগান, দুই রাউন্ড গুলি, দুটি গুলির খোসা, দুটি কিরিচ, একটি চাপাতি, একটি হাসুয়া, একটি ড্রেগার, একটি প্লাস, টর্চলাইট উদ্ধার করে পুলিশ।

সুজানগর থানার ওসি (তদন্ত) অরবিন্দ সরকার জানান, মঙ্গলবার সন্ধ্যায় গেদালালকে নরসিংহ পুর মসজিদের সামনে থেকে গ্রেফতার করা হয়। পরে রাত আড়াইটার দিকে তাকে নিয়ে অস্ত্র উদ্ধারে বের হলে হাসামপুর ঈদগাহ মাঠের কাছে তার সহযোগীরা পুলিশের ওপর গুলি ছুড়ে।

পুলিশও পাল্টা গুলি ছুড়লে শুরু হয় বন্দুকযুদ্ধ। এসময় গেদা পুলিশের গাড়ি থেকে লাফিয়ে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে গুলিতে আহত হন।

ভোর সাড়ে ৩টার দিকে তাকে সুজানগর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হলে ভোর পৌনে ৪টায় চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। তার বিরুদ্ধে মানিকগঞ্জে সোনার দোকানে ডাকাতি, সুজানগরে অপহরণ ও খুনসহ পাঁচটি মামলা রয়েছে বলে জানান ওসি।

পাবনার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (পুলিশ সুপার পদোন্নতি প্রাপ্ত) গৌতম কুমার বিশ্বাস জানান, নিহত গেদা মূলত আন্তঃজেলা ডাকাতদলের সদস্য। তার সহযোগীদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। গেদার মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাবনা জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হচ্ছে।